1. md.zihadrana@gmail.com : admin :
আফিলের দলীয় কোন্দলের খুন,সন্ত্রাসীর দূর্গ ভাঙতে চায় লিটন - দৈনিক সবুজ বাংলাদেশ

২৯শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ । রাত ৮:১২ ।। গভঃ রেজিঃ নং- ডিএ-৬৩৪৬ ।।

সংবাদ শিরোনামঃ
গণপূর্তের ইএম কারখানা বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী ইউসুফের ভুয়া বিল ও কমিশন বাণিজ্য কার বলে বলিয়ান এলজিইডির বাবু নারায়ণগঞ্জ আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিসে আনসার এবং দালালদের চলছে প্রকাশ্যে ঘুষ বাণিজ্য  বেনাপোল কাস্টমস কর্মকর্তা এসি নুরের অবাধ ঘুষ বাণিজ্য গুচ্ছের পছন্দক্রমে সর্বোচ্চ আবেদন জবিতে টঙ্গীর মাদক সম্রাজ্ঞী আরফিনার বিলাসবহুল বাড়ী-গাড়ী রেখে থাকেন বস্তিতে! শরীয়তপুরে কিশোরীকে অপহরণের পর গনধর্ষণ বেনাপোল কাস্টমসে ফুলমিয়া নাজমুল সিন্ডিকেটের ডিএম ফাইলে অবাধ ঘুষ বাণিজ্য নারীঘটিত কারন দেখিয়ে জবির ইমামকে অব্যাহতি, শিক্ষার্থীরা বলছে সাজানো নাটক মিটফোর্ডের জিনসিন জামান এখন ইমপেক্স ল্যাবরেটরীজ (আয়) এর গর্বিত মালিক
আফিলের দলীয় কোন্দলের খুন,সন্ত্রাসীর দূর্গ ভাঙতে চায় লিটন

আফিলের দলীয় কোন্দলের খুন,সন্ত্রাসীর দূর্গ ভাঙতে চায় লিটন

আলী রেজা রাজু,ঢাকা:

যশোর-১ (শার্শা) সীমান্তবর্তী এ উপজেলার টানা তিনবারের আ.লীগের সংসদ সদস্য শেখ আফিল উদ্দিন। দ্বাদশ জাতীয় নির্বাচনে এবারও তিনি দলীয় মনোনয়ন নৌকা প্রতীক নিয়ে নির্বাচনে নেমেছেন।বিগত ১৫ বছরে উল্লেখ্য যে তার শাসনামলে বিরোধী দলের একাধিক নেতাকর্মী ছাড়াও দলীয় কোন্দলে ক্ষমতাসীন দল আ.লীগের ও অঙ্গ সংগঠনের ইউপি চেয়ারম্যান, ইউপি সদস্য,সাংবাদিকসহ ৬৩ জন খুন হয়েছেন।পুরো উপজেলা মৃত্যুপুরী হিসাবে পরিচিত পেয়েছেন। এসব আ.লীগের নেতাকর্মীদের খুনের আসামিদের ও অস্ত্র ব্যবসায়ী, মাদক ব্যবসায়ী,স্বর্ণ চোরাচালানকারী, একাধিক মামলার আসামী ও চিন্তিত সন্ত্রাসীসহ বহিরাগত তথা বিএনপি-জামায়াত থেকে আগতদেরকে দলীয় ও সামাজিক ভাবে প্রতিষ্ঠা করেছেন।তার নিজস্ব বাহনী দ্বারা নির্যাতনে একধিক সংখ্যালষু পরিবারকে ও দেশ বাধ্য করা হয়েছে।সাধারণ জণগণের জমি দখলের ও অভিযোগ রয়েছে তার বিরুদ্ধে।এসব নিয়ে মূলত দলীয় কোন্দল থেকে আ.লীগের ভিতর ফাটল ধরে গ্রুপিং সৃষ্টি হয়। দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে এই আসন নিচ্ছে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ। বড় দল এবং দীর্ঘ দিন ক্ষমতায় থাকায় এই জেলার প্রায় প্রতিটি আসনে এবার দলের মনোনয়ন চাওয়া প্রার্থীর সংখ্যা আগের তুলনায় বেড়েছে।
৭ জানুয়ারি নির্বাচনকে সামনে রেখে ইতোমধ্যে অনেকেই মাঠে নেমেছেন।
তবে বর্তমান এমপিই দলের নমিনেশন পান।
আর স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনের মাঠে এলাকার বেনাপোল পৌরসভার সাবেক পৌর মেয়র ও জেলা আ.লীগের যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক আশরাফুল আলম লিটন।

এদিকে, রাজপথের প্রধান বিরোধীদল বিএনপি নির্দলীয়-নিরপেক্ষ তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে নির্বাচনের দাবিতে কর্মসূচি পালন করে যাচ্ছে। আর কেন্দ্রঘোষিত কর্মসূচির সঙ্গে তাল মিলিয়ে মাঠে আছে স্থানীয় বিএনপি। তবে দলটি নির্বাচনে যায়নি । সে কারনে কোথাও নির্বাচনমুখী প্রচার বা দলীয় কর্মকাণ্ড নেই তাদের।

অপরদিকে, জাতীয় পার্টিরও আনুষ্ঠানিক কর্মকাণ্ড তেমন চোখে পড়েনি। আর নিবন্ধন ও রাজনৈতিক জটিলতায় জামায়াতে ইসলামীর দলীয় অবস্থানও সেভাবে চিহ্নিত হয়নি।

এক সময়ে আওয়ামী লীগের ঘাঁটি হিসেবে পরিচিত ছিল যশোর-১ (শার্শা) আসনটি। মাঝখানে সেটি বিএনপি-জামাতের দখলে ছিল।আফিল উদ্দিন টানা তিনবারের সংসদ সদস্য হওয়ায় ‘গৃহবিবাদ’ও আছে। ফলে নির্বাচনের মাঠে তার দলীয় একাধিক প্রতিদ্বন্দ্বীও রয়েছে। আবার নির্বাচনের
মাঠে না নামলেও বিরোধের রেখা রয়েছে বিএনপিতেও। দলটি নির্বাচনে যদি যেতো তাহলে সেখানেও ধানের শীষের মনোনয়নপ্রত্যাশী রয়েছেন একাধিক প্রার্থী।

যশোরের শার্শা উপজেলার ১১টি ইউনিয়ন ও একটি পৌরসভা নিয়ে যশোর-১ আসন গঠিত। এই আসনের মধ্যে রয়েছে দেশের বৃহত্তম স্থলবন্দর বেনাপোল। সবদলের জন্য এই আসনটি মর্যাদার। বিগত ১১টি সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী ছয় বার, বিএনপি তিন বার, জাতীয় পার্টি ও জামায়াত একবার করে বিজয়ী হয়েছে।

বাংলাদেশের স্বাধীনতার পর এই আসনে ১৯৭৩ সালে আওয়ামী লীগের তবিবর রহমান সরদার (তৎকালীন যশোর-৫), ১৯৭৯ সালে বিএনপির আলী তারেক, ১৯৮৬ সালে জামায়াতের নূর হুসাইন, ১৯৮৮ সালে স্বতন্ত্র কেএম নজরুল ইসলাম, ১৯৯১ সালে আওয়ামী লীগের তবিবর রহমান সরদার, ১৯৯৬ সালের ১৫ ফেব্রুয়ারি বিএনপির মফিকুল হাসান তৃপ্তি, ১৯৯৬ সালের ১২ জুন আওয়ামী লীগের তবিবর রহমান সরদার, ২০০১ সালে বিএনপির আলী কদর, ২০০৮ সালে আওয়ামী লীগের শেখ আফিল উদ্দিন সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। ২০১৪ সালে শেখ আফিল উদ্দিন পুনরায় বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হন। সর্বশেষ ২০১৮ সালে শেখ আফিল উদ্দিন তৃতীয়বারের মতো সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়ে সংসদে প্রতিনিধিত্ব করছেন।

যশোর-১ (শার্শা) আসনের এবারও প্রার্থী টানা তিনবারের সংসদ সদস্য আওয়ামী লীগের শেখ আফিল উদ্দিন। পাশাপাশি দলীয় বিভাজনের সূত্র ধরে মাঠে রয়েছেন বেনাপোলের সাবেক পৌর মেয়র ও জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক আশরাফুল আলম লিটন স্বতন্ত্র হিসেবে নির্বাচনের মাঠে তিনি।

২০০১ সালে নৌকা মার্কা নিয়ে রাজনীতির মাঠে আসা শিল্পপতি শেখ আফিল উদ্দিন প্রথম নির্বাচনে পরাজিত হলেও পরে দল পুনর্গঠন ও সুসংহত করতে পারেননী তার নামে বিভিন্ন অপকর্মে সেল্টার দেযার অভিযোগ রযেছে । এ জন্য প্রথম দিকের এক দশক ধরে শার্শা ও বেনাপোলে আওয়ামী লীগের একক নেতৃত্ব দেন তিনি। ২০০৮ সালে তাই ঝামেলা ছাড়াই তিনি নৌকার মাঝি হয়েছিলেন। কিন্তু এরপরই দলে বিভক্তি শুরু হয়। সময়ের সঙ্গে সঙ্গে আশরাফুল আলম লিটনের সাথে শেখ আফিল উদ্দিনের দ্বন্দ্ব প্রকট হয়। বিগত নির্বাচনের তিনি আফিল উদ্দিনের সঙ্গে টক্কর দেওয়ার চেষ্টা করেও পারেনি। এখনও এই দুই নেতাকে ঘিরে স্থানীয় আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে অনেক প্রকাশ্য লড়াই চলে।

বেনাপোল পৌরসভার সাবেক মেয়র জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক আশরাফুল আলম লিটন বলেন, ‘শেখ আফিল উদ্দিন প্রতিবারই নমিনেশন পান, কিন্তু কি করেন আপনারাই খবর নেন। আওয়ামী লীগ অনেক বড় সংগঠন। সেখানে দলীয় মনোনয়ন পাওয়ার মতো অনেক যোগ্য নেতা ছিলো কিন্তু কাউকে না দিয়ে উনাকেই দিযেছেন। কেন্দ্র থেকে সুযোগ দেয়া হযেছে আমি স্বতন্ত্র হিসেবে মাঠে আছি।আমি ৩১ বছর ধরে রাজনীতিতে সক্রিয়। বেনাপোলের মেয়র হিসেবে আমি অনেক উন্নয়ন কর্মকাণ্ড করেছি। একাদশ সংসদ নির্বাচনে আমি নৌকার মনোনয়ন চেয়েছিলাম, এবারও চাইছি পাইনি ।

উল্লেখ্য, যশোর-১ (শার্শা) আসনে মোট ভোটার ২ লাখ ৬৩ হাজার ৫৬৪ জন। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ১ লাখ ৩১ হাজার ৫০৯ এবং নারী ভোটার ১ লাখ ৩২ হাজার ৫৫। ২০১৮ সালে একাদশ সংসদ নির্বাচনে যশোর-১ (শার্শা) আসনে দুই লাখ ৯ হাজার ৩ ভোট পেয়ে বিজয়ী হন আওয়ামী লীগের প্রার্থী শেখ আফিল উদ্দিন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপির প্রার্থী মফিকুল হাসান তৃপ্তি পেয়েছিলেন চার হাজার ৮০২ ভোট। এর আগে, ২০০৮ সালে নবম সংসদ নির্বাচনে শেখ আফিল উদ্দিন ৯৪ হাজার ৫৫৬ ভোট পেয়ে বিজয়ী হন। তার প্রতিদ্বন্দ্বী জামায়াতের আজিজুর রহমান পেয়েছিলেন ৮৮ হাজার ৭০০ ভোট।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2021
ভাষা পরিবর্তন করুন »