1. md.zihadrana@gmail.com : admin :
গণপূর্তের দুর্নীতিবাজ প্রকৌশলী মহিবুলের খুটির জোর কোথায়? - দৈনিক সবুজ বাংলাদেশ

২৫শে জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ । দুপুর ১২:৫৬ ।। গভঃ রেজিঃ নং- ডিএ-৬৩৪৬ ।।

সংবাদ শিরোনামঃ
বায়োফার্মা পেলো ইনস্টিটিউশনাল অ্যাপ্রিসিয়েশন অ্যাওয়ার্ড” নরসিংদীতে আবারো পল্লী বিদ্যুতের হরিলুট, মাঠকর্মী আটক ! কেরানীগঞ্জে পরিত্যক্ত ট্রাঙ্কে যুবকের লাশ কুমিল্লায় মোবাইল ফোন ও নগদ টাকাসহ তিন ছিনতাইকারী গ্রেফতার সাগরদাঁড়ীতে প্রতিষ্ঠাতা অধ্যক্ষর সমাধি’র পাশে অশ্লীল নৃত্য, সুশীল সমাজের ক্ষোভ শার্শা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স চিকিৎসক সংকটসহ নানা সমস্যায় জর্জরিত পুকুরে গোসল করতে গিয়ে সর্প দংশনের শিকার চতুর্থ শ্রেণীর ছাত্র বন্যা পরিস্থিতি মোকাবেলার লক্ষ্যে বিশ্বনাথে উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তার প্রেস ব্রিফিং পুলিশ সার্ভিস অ্যাসোসিয়েশনের বিবৃতিতে গভীর উদ্বেগ প্রকাশ বিএফইউজে-ডিইউজের পাটুরিয়া ঘাটে বাস চালকদের সিন্ডিকেট, যাত্রী হয়রানি চরমে !
গণপূর্তের দুর্নীতিবাজ প্রকৌশলী মহিবুলের খুটির জোর কোথায়?

গণপূর্তের দুর্নীতিবাজ প্রকৌশলী মহিবুলের খুটির জোর কোথায়?

স্টাফ রিপোর্টার
গৃহায়ণ ও গণপূর্ত অধিদফতরের ইএম-৪ এর নির্বাহী প্রকৌশলী মহিবুল ইসলাম কাজ না করেই বিল উঠিয়ে নেয়া, নিজের ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানকে দিয়ে কাজ করানো, আউটসোর্সিংয়ের নামে জনবল নিয়োগে শত কোটি টাকার দুর্নীতির অভিযোগ থাকার পরও ধরাছোঁয়ার বাইরেই থেকে যাচ্ছেন। প্রশ্ন উঠেছে তার খুঁটির জোর কোথায়?
গণপূর্ত অধিদফতরের প্রধান প্রকৌশলী শামীম আখতার বলেছেন, দুর্নীতি করলে কাউকেই ছাড় দেয়া হবে না। তিনি সচিবালয়ে বসলেও লাভ নেই। অবশ্য দুর্নীতির বিরুদ্ধে তদন্ত করে দোষী সাব্যস্ত হলে ব্যবস্থা নেয়া হবে।এদিকে, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের ১ কোটি ৮৫ লাখ টাকার ঢাকা মেডিকেল কলেজে সংস্কার কাজে কোনো টেন্ডার না করেই নিজে করতে গিয়ে মেডিকেল কলেজের পরিচালকের কাছে ধমকও খেয়েছেন। এরপর নিজের ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান ইউনিভার্সেল এন্টারপ্রাইজকে (হাউজ নং- ২৯১/৫ /২, পাইকপাড়া) কাজ পাইয়ে দিয়েছেন।
এদিকে, অনেক ঠিকাদারকে কাজ দিবেন এমন প্রতিশ্রুতি দিয়ে অগ্রিম টাকা নিয়ে কাজ তো দেননি, এমনকি টাকাও ফেরত দিতে গড়িমসি করছেন। তড়িঘড়ি করে জিও এনে প্রকৌশলি মহিবুল হাসান যখন নিজেই ঠিকাদার।
গৃহায়ণ ও গণপূর্ত অধিদপ্তর, ঢাকা এর নির্বাহী প্রকৌশলী মোঃ মহিবুল ইসলাম (গণপূর্ত ই/এম বিভাগ-৪, ঢাকা) স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের স্বাস্থ্য সেবা বিভাগের আওতাধীন গণপূর্ত অধিদপ্তরের মাধ্যমে বাস্ত বায়নযোগ্য অভিযোগ আছে পছন্দের ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের সাথে যোগসাজেশে নিজেই ঠিকাদারী পরিচালনা করেন। যেটি সরকারি চাকুরী বিধি অনুযায়ী মোতাবেক নয়।
এদিকে, গৃহায়ণও গণপূর্ত অধিদপ্তর, ঢাকা এর নির্বাহী প্রকৌশলী মোঃ মহিবুল ইসলাম (গণপূর্ত ই/এম বিভাগ-৪, ঢাকা) আউটসোর্সিং এর মাধ্যমে একাধিক জনবল সরবরাহের জন্য নিজের নিয়ন্ত্রণে রেখে দরপত্র আহবান করেন। অভিযোগ আছে পছন্দের ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের সাথে যোগসাজেশে নিজেই ঠিকাদারী পরিচালনা করেন। যে কারণে উক্ত দরপত্রে জনবল সরবরাহের লাইসেন্স অর্থাৎ কলকারখানা পরিদর্শন অধিদপ্তর কর্তৃক প্রদত্ত লাইসেন্স বাধ্যতা মূলক না করে পি ডাব্লিউ ডি লাইসেন্স বাধ্যতা মূলক করেছেন, যেন প্রকৃত জনবল সরকরাহকারী কোন প্রতিষ্ঠান উক্ত শর্ত পূরণ করে সিডিউল ক্রয় করতে না পারে, যাহা জনবল সরবরাহের জন্য প্রযোজ্য নয়।
আরো অভিযোগ আছে মোঃ মহিবুল ইসলামের অনুমতি ছাড়া কাউকে কোন সিডিউল ক্রয় করতে দেওয়া হয় না এবং নির্বাহী প্রকৌশলী মোঃ মহিবুল ইসলামের কার্যালয় সচিবালয়ের ভিতরে হওয়ার পরেও যারা দরপত্রে অংশগ্রহণ করেছেন তাদের কোন গেট পাশ-প্রবেশ অনুমতির ব্যবস্থা না করে একাধিক দরপত্র দাখিলের তারিখ সোমবার নির্ধারণ করেন যাতে করে কেউ মন্ত্রণালয়ের ভিতর প্রবেশ করে কোন দরপত্র জমা দিতে না পারে। যদিও প্রকিউরমেন্ট আইন-বিধি অনুযায়ী টেন্ডার সিডিউল ক্রয় এবং জমাদানের ক্ষেত্রে নিরপেক্ষ, স্বচ্ছ ও সকলের সমান অধিকার আছে।
বিশেষ সূত্রের মাধ্যমে জানা যায়, দীর্ঘদিন যাবত নির্বাহী প্রকৌশলী মোঃ মহিবুল ইসলাম প্রতিটি পদের জন্য মোটা অংকের উৎকোচ গ্রহন করে পছন্দের লোক নিয়োগ করছেন। নাম প্রকাশ না করার শর্তে একাধিক প্রার্থীর সাথে কথা বলে জানা যায় যে জন প্রতি তিনি আশি হাজার থেকে একলাখ টাকা র্পযন্ত উৎকোচ নিয়ে প্রায় কোটি টাকার দূর্নীতির অভিযোগ পাওয়া গেছে।
আলোচ্য দরপত্রে অংশগ্রহণকারী প্রতিষ্ঠান উইডুর চেয়ারম্যানের সাথে যোগাযোগ করলে তিনি জানান, অনেক বাধা অতিক্রমের পর দুইটি সিডিউল ক্রয় করে দরপত্রে অংশগ্রহন করেন। কিন্তু নির্বাহী প্রকৌশলী মোঃ মহিবুল ইসলাম নিজেই ঠিকাদারী প্রতিষ্টানের সাথে যুক্ত থেকে তার পছন্দের প্রতিষ্টানকে কাজ পাইয়ে দেওয়ার জন্য উইডুর চেয়ারম্যানকে নানা ভাবে হয়রানি করছেন।
হয়রানির বিষয়ে জানতে চাইলে উইডু চেয়ারম্যান বলেন, এক দিনের নোটিশে তাদের দাখিল কৃত দুইটি প্যাকেজের জনবলকে মৌখিক ও ডাক্তারী— মেডিকেল পরীক্ষার জন্য হাজির করতে বলা হয়। তারা তার নির্দেশ মোতাবেক ঢাকার বাহিরে প্রত্যন্ত গ্রাম অঞ্চল থেকে হতদরিদ্র জনবলকে ঢাকায় পরীক্ষার জন্য আসতে বলে, আমাদের দাখিল কৃত দুইটি প্যাকেজের জনবল ঢাকায় বিভিন্ন আবাসিক হেটেলে রাত্রী যাপন করে নির্ধারিত সময়ে উপস্থিত হওয়ার পরেও সেখানে মূল্যায়ন পরীক্ষার সাথে সংশিালষ্ট কেউ উপস্থিত ছিলেন না।
উইডুর চেয়ারম্যান আরও অভিযোগ করেন যে, তাদের দুইটি লটের সাথে দরপত্রে অংশগ্রহনকারী কোন প্রতিষ্ঠানই জনবল সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠান নয়। দরপত্রে অংশগ্রহনকারী উইডুই একমাত্র জনবল সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠান, র্বতমানে বাংলাদেশের বিভিন্ন মন্ত্রণালয় ও বিভাগে তাদের প্রায় একচল্লিশটি চুক্তিপত্র চলমান আছে। তিনি আরও বলেন, যেহেতু তারাই একমাত্র রেসপনসিভ ও সর্বনিম্ন দরদাতা, তাদেরকে নোয়া (নোটিফিকেশন অফ এওয়ার্ড) দেওয়ার দাবি জানান। এ বিষয়ে উইডুর চেয়ারম্যান, প্রধান প্রকৌশলী গৃহায়ন ও গণপূর্ত অধিদপ্তর, ঢাকা এবং সচিব বরাবর লিখিত আবেদন দাখিল করেছেন। সেখান থেকে ধারা ও বিধি অনুওসরণ করে রিভিও প্যানেল গঠনের আবেদন করবেন এবং যথাযথ সিদ্ধান্ত না পেলে মাননীয? প্রতিমন্ত্রী গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয় বরাবর লিখিত অভিযোগ দাখিল করবে। সেখান থেকে উইডু ন্যায় বিচার না পেলে মহামান্য হাইকোর্টের স্মরণাপন্ন হবেন বলে অবহিত করেছেন।
উপরোক্ত অভিযোগের বিষয়ে জানতে গণপূর্ত বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী মোঃ মহিবুল ইসলামের মোবাইলে একাধিকবার কল দিলেও তিনি কল রিসিভ করেন নি।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2021
ভাষা পরিবর্তন করুন »