1. md.zihadrana@gmail.com : admin :
  2. dailysobujbangladesh@gmail.com : Admin ID : Admin ID
  3. uch.khalil@gmail.com : Md. Ibrahim Khalil Molla : Md. Ibrahim Khalil Molla
  4. masud@dailysobujbangladesh.com : Md. Masud : Md. Masud
প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরের প্রকল্প পরিচালক আনিছুর রহমানের দুর্নীতি ও নারী কেলেংকারী ফাঁস! - দৈনিক সবুজ বাংলাদেশ

৩০শে মার্চ, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ । সকাল ৭:৪৬ ।। গভঃ রেজিঃ নং- ডিএ-৬৩৪৬ ।।

সংবাদ শিরোনামঃ
সাংবাদিক মাহবুব আলম লাভলুর বিরুদ্ধে ডিজিটাল আইনে মামলা সাধারণ জনগণ কি হজ্জ ও উমরাহ এজেন্সী দের কাছে কি জিম্মি কুয়াকাটায় তামাক নিয়ন্ত্রণ আইন বাস্তবায়নের লক্ষ্যে টাস্ক ফোর্স কমিটি ও পৌরসভার যৌথ সভা প্রথম আলোর সেই সাভার প্রতিনিধি আটক! কলাপাড়ায় নারী ধর্ষণ অভিযোগে যুবক গ্রেফতার যাত্রাবাড়ীতে ডিবি পরিচয় প্রদানকারী  চক্রের ০৩ ভুয়া ডিবি পুলিশকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব- ১০ কুমিল্লা পেশাজীবী সাংবাদিক ইউনিয়নের ইফতার ও দোয়া মোনাজাত অনুষ্ঠিত সেনা সদস্য নিখোঁজ ১৩ দিনেও মিলে নাই সন্ধান,আহাজারি পরিবারের উপজেলা প্রশাসন আয়োজিত স্বাধীনতা দিবসের ব্যনারে “স্বাধীনতা” বানানে ভুল যাদের জন্মই গণতন্ত্রের মধ্য দিয়ে হয়নি তারা নাকি গণতন্ত্রের জন্য লড়াই করে: প্রধানমন্ত্রী
প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরের প্রকল্প পরিচালক আনিছুর রহমানের দুর্নীতি ও নারী কেলেংকারী ফাঁস!

প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরের প্রকল্প পরিচালক আনিছুর রহমানের দুর্নীতি ও নারী কেলেংকারী ফাঁস!

 

বিশেষ প্রতিবেদকঃ
নারী কেলেঙ্কারীসহ সীমাহীন দুর্নীতি এবং অনিয়মের অভিযোগ পাওয়া গেছে প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরের এক প্রকল্প পরিচালকের বিরুদ্ধে। সুত্র জানায়,একের পর এক দুর্নীতি ও নিয়ম করেও পার পেয়ে যাচ্ছেন এই কর্মকর্তা। যার একক নেতৃত্বে বিশ্ব ব্যাংক পর্যন্ত প্রকল্প বন্ধ হয়ে যাওয়ার পরেও নতুন করে আবারও তিনি প্রকল্প পরিচালক পদ পেয়েছেন। এ যেন সাপে বরের মতো অবস্থা।
সূত্র জানায়, প্রকল্প পরিচালক আনিছুর রহমান সম্প্রতি ২৩টি গ্রুপের দরপত্র আহবান করেন তার নিয়ন্ত্রনাধীন প্রকল্প থেকে। কিন্তু সিন্ডিকেটের মাধ্যমে পছন্দের ঠিকাদারদের মনগড়া শর্ত জুড়ে দেয়ায় প্রত্যেক টেন্ডারের বিপরীতে একটি করে দরপত্র জমা পড়ে যা পূর্ব পরিকল্পিতভাবে নিয়ন্ত্রণ করা হয়েছে বলেই এমনটি। বর্তমানে তাদেরকে কার্যাদেশ দেয়ার প্রক্রিয়া চলছে।
এছাড়া প্রকল্পের বিল্ডিং নির্মাণ হওয়ার আগেই তিনি ৪ কোটি টাকার ফার্ণিচার ক্রয়ের দরপত্র আহবান করে সরকারী বিধি উপেক্ষার মাধ্যমে অনভিজ্ঞ ও অখ্যাত একটি ফার্ণিচার সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠানকে কার্যাদেশ দিয়ে তাদের কাছ থেকে ৮০ লক্ষ টাকা কমিশন আদায় করেছেন মর্মে অভিযোগ উঠেছে। এ বিষয়ে অটবি ফার্ণিচার কোম্পানীর পক্ষ থেকে একটি লিখিত অভিযোগ প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের সচিব বরাবরে জমা দেওয়া হয়েছি। যে টি এখন তদন্ত চলছে।
প্রকল্প পরিচালক আনিছুর রহমান এনভিএন এন্ড ইনফ্লুয়েঞ্জা প্রকল্পের প্রকিউরমেন্ট অফিসার থাকাকালীন সময় কেনাকাটা চরম অনিয়মে জড়িয়ে পড়েন যে কারণে বিশ্ব ব্যাংকের অর্থায়নে পরিচালিত প্রকল্পটি বাতিল হয়ে যায়। এ ঘটনায় পরবর্তীতে তাকে পানিশমেন্ট বদলি হিসেবে গাজীপুরের কাপাসিয়ায় বদলি করা হয়। গাজীপুরের কাপাসিয়া থাকাকালীন সময় তিনি নারী কেলেংকারিতে জড়িয়ে পড়েন। ঘটনা জানাজানি হলে কর্তৃপক্ষ তাকে তড়িঘড়ি করে সিরাজগঞ্জে বদলি করে দেয়। পরে সেখান থেকে প্রভাবশালীদের তদবিরে সিবিএইচে বদলি হয়ে আসেন।
প্রকল্প পরিচালক আনিছুর রহমান সিবিএস এ কর্মরত থাকাকালীন সময়ে তিনি রুমে বসে মদ্যপান করা অবস্থায় তৎকালীন অতিরিক্ত সচিব ফেরদাউস আহমেদ দেখতে পান এবং সাথে সাথে তাকে বদলীর সুপারিশ করেন।
এ সকল অনিয়মের পরেও প্রকল্প পরিচালক আনিছুর রহমান বহাল তবিয়াতে। পরে প্রভাবশালী মহলের সহযোগীতায় এ অসাধু কর্মকর্তা পুরস্কৃত হয়ে প্রকল্প পরিচালকের দায়িত্ব পান।
সুত্র আরো জানায়, প্রকল্প পরিচালক আনিছুর রহমান বিশ্ব ব্যাংকের অর্থায়নে পরিচালিত প্রকল্পের প্রকিউরমেন্ট অফিসার থাকাকালীন সময় অনিয়মের মাধ্যমে কোটি কোটি টাকা লুটপাট করেন যা দিয়ে তিনি রাজধানীর ফার্মগেট এলাকার রাজাবাজারে বিলাসবহুল ফ্লাট কেনেন এবং বসুন্ধরা আবাসিকে ২ হাজার স্কয়ার ফিটের বিলাশ বহুল ফ্লাট কিনে বর্তমানে বসবাস করছেন। যার আনুমানিক মূল্য আড়াই কোটি টাকার অধিক। তদন্ত করলে এ সকল ঘটনার প্রমাণ মিলবে বলে সুত্রটি দাবি করে।
তবে এমন অসৎ কর্মকর্তা প্রকল্প পরিচালক থাকা নিয়ে অনেকের মাঝেই বিভিন্ন রকমের সমালোচনার জন্ম দিয়েছে। দ্রুত এ দুর্নীতিবাজ কর্মকর্তাকে প্রকল্প পরিচালকের উপর থেকে অপসারণ করে তার বিরুদ্ধে অভিযোগগুলো তদন্ত পুর্ব্বক বিভাগীয় ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি করেন নাম প্রকাশ না করার শর্তে প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরের একাধিক কর্মকর্তা।
তারা আরো জানান, প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরে এমন নারী লোভী মাতাল এবং দুর্নীতি পরায়ন কর্মকর্তা প্রকল্প পরিচালক হিসেবে থাকলে অধিদপ্তরের উন্নয়ন যেমন ব্যাহত হবে অন্যদিকে সরকারের সাফল্য ম্লান হয়ে যাবে। তাই তাকে অতিদ্রুত অপসারণ করা উচিত ।
এ সকল অভিযোগের বিষয়ে প্রকল্প পরিচালক আনিছুর রহমানের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি এ প্রতিবেদককে সকল অভিযোগ মিথ্যা এবং একটি পক্ষ এ সব অপপ্রচার করছে বলে তিনি দাবী করেন।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2021
ভাষা পরিবর্তন করুন »