1. md.zihadrana@gmail.com : admin :
প্রেমের বিয়ে, এক বছরই প্রাণ গেলো সুমাইয়ার - দৈনিক সবুজ বাংলাদেশ

২২শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ । সন্ধ্যা ৬:২৩ ।। গভঃ রেজিঃ নং- ডিএ-৬৩৪৬ ।।

সংবাদ শিরোনামঃ
বটিয়াঘাটার মাখঝানুল উলুম নুরানী ও মহিলা মাদ্রাসার সুপারের বিরুদ্ধে অনৈতিক কর্মকান্ডের প্রতিবাদ করায় চাকরিচ্যুত হলো এক শিক্ষিকা  বিএমইটির ১১ স্মার্ট কার্ড জালিয়াতি: বিদেশ যেতে না পেরে দুর্ভোগে কর্মীরা কেরানীগঞ্জ প্রেসক্লাবে সভাপতি আব্দুল গনী সাধারণ সম্পাদক মোস্তফা কামাল প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ৪৪ তম স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষে বঙ্গমাতা সাংস্কৃতিক জোটের আলোচনা সভা ও দোয়া অনুষ্টিত মাদারীপুরে প্রতিবন্ধী ভাতার টাকা দুই সহকারী সমাজসেবা অফিসারের পকেটে যমুনা লাইফের গ্রাহক প্রতারণায় ‘জড়িতরা’ কে কোথায় মেয়র বলে কথা: একাধিক পত্রিকায় পৌরসভার দুর্নীতি ও ভূমিদুস্যতার সংবাদ প্রকাশিত হলেও নিরব প্রশাসন বাংলাদেশে উদ্বোধন হলো টাটা মটরস-এর ‘টাটা যোদ্ধা ঔষধ প্রশাসনের দুর্নীতিবাজ কর্মকর্তাদের প্রত্যাক্ষ মদদে ইউনানী, আয়ুর্বেদিক কোম্পানির প্রাণঘাতী ঔষধে বাজার সয়লাব স্নাতকের মেধা তালিকায় তৃতীয় স্থানে অবন্তীকা
প্রেমের বিয়ে, এক বছরই প্রাণ গেলো সুমাইয়ার

প্রেমের বিয়ে, এক বছরই প্রাণ গেলো সুমাইয়ার

স্টাফ রিপোর্টারঃ

মোবাইলফোনে প্রেম তার পরে বিয়ে। এর এক বছরের মধ্যেই প্রাণ গেলো সুমাইয়ার (১৮)। হাসপাতালে বেওয়ারিশ হিসেবে পড়ে থাকা তার মরদেহ মঙ্গলবার (২৭ জুন) গ্রহণ করেছেন স্বজনরা।

সুমাইয়া আক্তার মৌলভীবাজারের রাজনগর উপজেলার মুন্সিবাজার ইউনিয়নের মেদেনী মহল গ্রামের সেলিম আহমদের মেয়ে।

পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, মোবাইলফোনের মাধ্যমে কমলগঞ্জ উপজেলার আদমপুর ইউনিয়নের বনগাঁও গ্রামের এমানি মিয়ার ছেলে ইমরান মিয়ার (২৫) সঙ্গে পরিচয় হয় সুমাইয়ার। সেই পরিচয় থেকেই তাদের মাঝে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। সবকিছু উপেক্ষা করে প্রেমিকের হাত ধরে পালিয়ে গিয়েছিলেন সুমাইয়া। ২০২২ সালের আগস্ট মাসে বিয়ে করেছিলেন ইমরান মিয়াকে। পরিবারের অমতে পালিয়ে বিয়ে করায় এরপর পর সুমাইয়ার সঙ্গে আর যোগাযোগ রাখেননি স্বজনরা।

সুমাইয়ার মামা কামরান আলী  বলেন, সুমাইয়া পালিয়ে বিয়ে করেছিল ইমরান মিয়াকে। তাদের বিয়ের পর আর আমরা যোগাযোগ রাখিনি। রোববার বিকেলে সুমাইয়ার স্বামী ইমরান মিয়ার চাচা আমাদের ফোন দিয়ে বলেন, তোমাদের মেয়েকে দেখতে হলে ওসমানী মেডিকেলে আসো, সে অসুস্থ। কেন, কীভাবে অসুস্থ জানতে চাইলে তিনি আমাদের হুমকি-ধামকি দেন। তখন আমরা বনগাঁও গ্রামের আশপাশের লোকদের কাছে খবর নিয়ে জানতে পারি সুমাইয়ার স্বামী তাকে বেশ নির্যাতন করেছে।

তিনি বলেন, এরপর ওইদিনই আমরা সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে গিয়ে তার কোনো সন্ধান পাচ্ছিলাম না। এক আত্মীয়র মাধ্যমে খোঁজ নিয়ে জানতে পারি সুমাইয়ার মরদেহ হাসপাতালের হিমাগারে বেওয়ারিশ হিসেবে রাখা আছে। এরপর হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ সুমাইয়ার মা লুৎফা বেগমকে মরদেহ দেখতে দেয়। পরে তিনি সুমাইয়ার মরদেহ শনাক্ত করেন। মরদেহ গ্রহণের জন্য হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ সিলেট কোতোয়ালী থানায় যোগাযোগের পরামর্শ দেয়। তারা কমলগঞ্জ থানায় যোগাযোগ করে দুইদিন পর আমরা মরদেহ গ্রহণ করেছি।

কামরান আলী আরও বলেন, পালিয়ে বিয়ে করায় আমরা যোগাযোগ করিনি। কিন্তু যাকে ভালোবেসে বিয়ে করেছিল তার হাতেই নিহত হলো মেয়েটি। যখন মেয়েটির মৃত্যুর খবর জানতে পেরেছি আর ঘরে থাকা সম্ভব হয়নি, তাই হাসপাতালে ছুটে এলাম। মঙ্গলবার বিকেলে মরদেহ গ্রহণ করে ওসমানীতেই ময়নাতদন্ত করা হয়েছে। এখন কমলগঞ্জ থানাকে দেখিয়ে মরদেহ দাফন করবো।
এ বিষয়ে কমলগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সঞ্জয় কুমার চক্রবর্তী বলেন, সিলেট কোতোয়ালী থানায় মাধ্যমে ওই মেয়ের মৃত্যুর বিষয়টি আমরা জানতে পারি। তবে এ ঘটনায় এখনো কেউ অভিযোগ দেয়নি। অভিযোগ পেলে গুরুত্ব দিয়ে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2021
ভাষা পরিবর্তন করুন »