1. md.zihadrana@gmail.com : admin :
বিপাশার প্রস্তুতি - দৈনিক সবুজ বাংলাদেশ

১৯শে এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ । সকাল ৬:০৪ ।। গভঃ রেজিঃ নং- ডিএ-৬৩৪৬ ।।

সংবাদ শিরোনামঃ
স্বতন্ত্র সাংসদ ওয়াহেদের বেপরোয়া আট খলিফা চৌদ্দগ্রামে পুকুরের মালিকানা নিয়ে মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের উপর হামলা ঋণ খেলাপী রতন চন্দ্রকে কালবের পরিচালক পদ থেকে অপসারন দাবি নীরব ঘাতক নীরব লালমাই অবৈধভাবে ফসলি জমির মাটি নিউজ করতে গিয়ে হুমকি, থানায় জিডি বিশ্বনাথের পৌর মেয়রের বিরুদ্ধে সাত কাউন্সিলরের পাহাড়সম অভিযোগ বিশ্বনাথে ১১ চেয়ারম্যান প্রার্থী’সহ ২০ প্রার্থীর মনোনয়নপত্র দাখিল মুখে ভারতীয় পণ্য বয়কট, অথচ ভারতেই বাংলাদেশি পর্যটকের হিড়িক শার্শায় সন্ত্রাস ও মাদকের বিরুদ্ধে সংবাদ প্রকাশের জেরে সাংবাদিকের উপর হামলা গণপূর্ত অধিদপ্তরের মহা দূর্নীতিবাজ ডিপ্লোমা মাহাবুব আবার ঢাকা মেট্রো ডিভিশনে!
বিপাশার প্রস্তুতি

বিপাশার প্রস্তুতি

নিজস্ব প্রতিবেদক॥
লাক্স তারকা বিপাশা কবির। ২০১২ সালে ‘ভালোবাসার রঙ’ ছবির আইটেম গানে অংশ নিয়ে রুপালি পর্দায় যাত্রা শুরু করেন। এরপর অনেক ছবিতে আইটেম গানে পারফর্ম করে আলোচনায় আসেন তিনি। বর্তমানে চলচ্চিত্রের প্রধান নায়িকা হিসেবে কাজ করেছেন। তার হাতে রয়েছে বেশকিছু সিনেমা। বিপাশা কবির  জানান, করোনা পরিস্থিতি কিছুটা স্বাভাবিক হওয়ায় আবারো কাজে ফেরার প্রস্তুতি নিচ্ছেন। এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ৩টি ছবির কাজ রানিং ছিল। কিন্তু লকডাউনের কারণে বন্ধ হয়ে যায়।

প্রযোজক-পরিচালকদের সঙ্গে কথা হচ্ছে। এ মাসেই শুটিংয়ে নেমে পড়তে পারবো আশা করছি। এদিকে, বিপাশা সম্প্রতি একঘেয়েমি কাটানোর জন্য কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতে গিয়েছিলেন। কেমন সময় কাটলো জানতে চাইলে এই নায়িকা বলেন, অনেকদিন ঘরে থাকতে থাকতে একঘেয়েমি চলে আসে। তাই চিন্তা করলাম একটু ঘুরে আসি। মা, বোন, বোনের মেয়ের সঙ্গে খুব ভালো সময় কেটেছে। অভিনেত্রীর হাতে ‘পরাণে পরাণ বান্ধিয়া’ ও ‘জেদি মেয়ে’সহ আরও কয়েকটি সিনেমা মুক্তির অপেক্ষায় আছে। আর কাজ চলমান আছে ‘যার নয়নে যারে ভালো লাগে’, ‘গিভ অ্যান্ড টেক’র। সবমিলিয়ে বিপাশা বলেন, করোনার মধ্যেও কাজ চালিয়ে গেছি। যে ক’টি ছবি করেছি প্রত্যেকটি নিয়েই আমি বেশ আশাবাদী। একে একে মুক্তি পেলে ভালো কিছুই হবে। প্রেক্ষাগৃহে সিনেমা মুক্তি দেয়াকে কেন্দ্র করে যে উৎসব বিরাজ করতো সেটা মিস করেন বলেও উল্লেখ করেন এই নায়িকা। বিপাশা কবির বলেন, আমরা তো মূলত হলের শিল্পী। আগের দিনগুলো খুব মিস করি। খারাপ লাগে আসলে। কারণ, হল থেকেই আমার জন্ম। হলেই সবসময় ছবি মুক্তি হয়েছে। ছবি মুক্তি পেলে হলে হলে ঘোরার অভিজ্ঞতা অন্যরকম। দর্শক সাড়া সামসামনি দেখার মধ্যে একটা আনন্দ আছে। ওই অনুভূতি বলে বোঝানো যাবে না। আবার হল চাঙ্গা হোক সেটাই চাই। হল বাঁচলেই আমরা বাঁচবো।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2021
ভাষা পরিবর্তন করুন »