1. md.zihadrana@gmail.com : admin :
রায়গঞ্জের ব্রহ্মগাছা ইউনিয়ন পরিষদ লুটে গোলাম ছরওয়ার লিটন এর সম্পদের পাহাড়! - দৈনিক সবুজ বাংলাদেশ

১৭ই জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ । সন্ধ্যা ৭:৪০ ।। গভঃ রেজিঃ নং- ডিএ-৬৩৪৬ ।।

সংবাদ শিরোনামঃ
রায়গঞ্জের ব্রহ্মগাছা ইউনিয়ন পরিষদ লুটে গোলাম ছরওয়ার লিটন এর সম্পদের পাহাড়!

রায়গঞ্জের ব্রহ্মগাছা ইউনিয়ন পরিষদ লুটে গোলাম ছরওয়ার লিটন এর সম্পদের পাহাড়!

মোঃ ইব্রাহিম হোসেন:

সিরাজগঞ্জ জেলার রায়গঞ্জ উপজেলার আওয়ামী লীগের সদস্য ও ৯নং ব্রম্মগাছা ইউনিয়ন এর চেয়ারম্যান গোলাম ছরওয়ার লিটন এর কাছে থেকে জন্ম নিবন্ধন নিতে গেলেও ৭/৮ শত টাকা হাতিয়ে নেয় এই দুর্নীতিবাজ গোলাম ছরওয়ার লিটন এছাড়াও আরো অনেক অভিযোগ রয়েছে এই আওয়ামী চেয়ারম্যান গোলাম ছরওয়ার লিটন এর বিরুদ্ধে।

সার্বজনীন পেনশন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অবদান ও উপহার :
বয়স্ক ভাতা,প্রতিবন্ধী ভাতা,বিধবা ভাতা,মাতৃকালীন ভাতা ইত্যাদি চালু করেছেন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, কিন্তু সেই কার্ড নিয়ে চলছে রমরমা ব্যবসা, অসহায় হতদরিদ্র মানুষের কাছ থেকে নিচ্ছেন ৬/৯ হাজার টাকা তবু ও অসহায় মানুষের মাঝে তাদের প্রাপ্ত কার্ডটি বুঝিয়ে দিচ্ছেন না ,এই সব অনিয়ম চলছে ইউনিয়নের কয়েকটি ওয়ার্ডে তবুও দেখার কেউ নেই। ভুক্তভোগীদের অভিযোগ চেয়ারম্যানকে জিজ্ঞাসা করলে বলে টাকা দিয়েছেন অল্প তাই আরো কিছু টাকা লাগবে তারপর আপনার কার্ড বুঝিয়ে দিবো। তাহলে এই অসহায় মানুষের কি হবে? না পাচ্ছে তাদের দেওয়া টাকা ফেরৎ, না পাচ্ছে তাদের প্রাপ্ত কার্ডটি।

আরো জানা যায়, এলাকার কোন বিচার সালিশে তাকে নিতে হলে দিতে হয় মোটা অংকের টাকা।

এছাড়া সরকারি স্যানিটেশন প্রকল্পের টিউবওয়েল যদিও ফ্রি দেওয়ার কথা রয়েছে তবে গোলাম ছরওয়ার লিটন চেয়ারম্যান নিয়ে থাকেন টিউবওয়েল প্রতি ১০/১২ হাজার টাকা এবং নিজস্ব আত্মীয় স্বজনদের মধ্যে দিয়ে থাকে।

দীর্ঘ প্রায় সাড়ে ৭ বছরে ব্রম্মগাছা ইউনিয়নে উল্লেখযোগ্য কোন উন্নয়ন দেখা যায়নি এমনটি জানিয়েছেন স্থানীয়রা
তবে চেয়ারম্যান গোলাম ছরওয়ার লিটন এর ব্যক্তিগত উন্নয়ন বেশ ভালই হয়েছে। রায়গঞ্জ উপজেলা ১নং ধামাইনগর ইউনিয়নে কিনেছে ২৫ বিঘা জমি,
৮নং পাঙ্গাসী ইউনিয়নে রয়েছে ১০/১২ বিঘা জমি, ব্রম্মগাছা
রয়েছে ২ বিঘা জমি,৬নং ধানগড়া বাজারে রয়েছে বিশাল একটি কাপড়ের শো-রুম, কিনেছেন ব্যক্তিগত প্রাইভেটকার, নিজে বসবাস করার জন্য তৈরী করেছে একটি দৃষ্টিনন্দন বাড়ি সেই বাড়ীতে ব্যয় হয়েছে প্রায় ১ কোটি টাকা, বিশ্বাস্য সূত্রে জানা যায় তার শাশুড়ীর নামে ব্যাংকে রেখেছেন ৯০/৯৫ লক্ষ টাকা, কোন চাকরি বা ব্যবসা ছাড়াই গোলাম ছরওয়ার লিটন এখন কয়েক কোটি টাকার মালিক। একসময়ে অভাবের তাড়নায় মানুষের কাছে থেকে বিড়ি সিগারেট চেয়ে খেতেন এই গোলাম ছরওয়ার লিটন আর সেই গোলাম ছরওয়ার লিটন চেয়ারম্যান হওয়ার পর থেকে মাত্র সাড়ে ৭ বছরে এখন সে হয়ে গেছে কোটিপতি।

ধারাবাহিক প্রতিবেদনের আজ প্রথম পর্ব

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2021
ভাষা পরিবর্তন করুন »