1. md.zihadrana@gmail.com : admin :
শিক্ষার্থী নেই তবুও এমপিওভুক্ত হলো স্কুলটি - দৈনিক সবুজ বাংলাদেশ

২৫শে জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ । রাত ১:০৪ ।। গভঃ রেজিঃ নং- ডিএ-৬৩৪৬ ।।

সংবাদ শিরোনামঃ
৬০ বছরে বিটিভি আজ ডুবছে, বাঁচাও বিটিভি এই শ্লোগানে সকল শিল্পী কলাকুশলীরা আন্দোলনে নামছে গুলশানে স্পার অড়ালে বাহার রানা সুমনের মাদক বাণিজ্য ও নারী দিয়ে ফাঁদ সাংবাদিক হাসান মেহেদীর মৃত্যুর তদন্ত ও বিচার দাবি রিপোর্টার্স উইদাউট বর্ডারসের কোটা সংস্কার আন্দোলনে দায়িত্ব পালনকালে শিক্ষার্থীদের হামলায় ১২ পুলিশ সদস্য আহত পুলিশ-আন্দোলনকারী সংঘর্ষে রণক্ষেত্র যাত্রাবাড়ী থেকে শনিরআখড়া যুগান্তরের সাংবাদিক ও তার পরিবারের প্রাণনাশের হুমকির প্রতিবাদে মানববন্ধন এক মাসেই পদোন্নতি, প্রায় ১৭ কোটি টাকা ছাড়, বদলী দুই! অভিভাবকহীন সন্তানদের থেকে রাষ্ট্রও যেন মুখ ফিরিয়ে নিয়েছে কালবের অবৈধ চেয়ারম্যান আগষ্টিনের পিউরিফিকেশন গ্যাং এর অনিয়ম দুর্নীতির মহোৎসব চলছে জবির ৩ শিক্ষার্থী গুলিবিদ্ধ
শিক্ষার্থী নেই তবুও এমপিওভুক্ত হলো স্কুলটি

শিক্ষার্থী নেই তবুও এমপিওভুক্ত হলো স্কুলটি

পঞ্চগড় প্রতিনিধি :

পঞ্চগড়ের আটোয়ারী উপজেলার ছেপড়াঝার আদর্শ নিম্ন মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে ক্লাশে আসেনা কোন শিক্ষার্থী, তবুও এমপিওভুক্ত হয়েছে বিদ্যালয়টি। গত ৬ জুলাই প্রকাশিত এমপিওভুক্তির তালিকায় নাম এসেছে বিদ্যালয়টির। এমন খবরে ওই বিদ্যালয়ের শিক্ষকরা আনন্দিত হলেও বিস্মিত এলাকার অনেকেই।
এলাকাবাসীর অভিযোগ, মাঝে মধ্যে বিদ্যালয়টি অফিস খোলা হলেও নেই কোনো ছাত্র-ছাত্রী। এই প্রতিষ্ঠানটি কীভাবে এমপিওভুক্ত হয়,। সরেজমিনে মঙ্গলবার দুপুর ১২টা ২০ মিনিটে বিদ্যালয়ে গিয়ে দেখা যায়, বিদ্যালয়টি খোলা থাকলেও ক্লাশে নেই কোন শিক্ষার্থী। প্রতিবেদক বিদ্যালয়ে যাওয়ার পরে তিনজন শিশু-কিশোরকে বিদ্যালয়ে ডেকে আনেন অফিস সহায়ক দাইমুল ইসলাম। পরে একটি শ্রেণি কক্ষে তাদের বসিয়ে দিয়ে একটি করে ৬ষ্ঠ, ৭ম ও ৮ম শ্রেণির বই দিয়ে বসিয়ে দেওয়া হয়। এসময় তাদের কাছে ছিলোনা কোন খাতা, কলম। বাধন নামে এক কিশোর বলেন, আমি স্কুলের পাশে খেলা করতেছি, স্যার আমাকে ডেকে এনে ক্লাশে বসতে বলল।
বিদ্যালয়ের পাশের বাড়ির জীবন নামে এক ব্যক্তি বলেন, এই স্কুলে কিছু ছাত্র/ছাত্রী আছে তারা একসাথে দুই স্কুলে ভর্তি হয়ে আছে। তারা অন্য স্কুলে ক্লাশ করে। এসময় বিদ্যালয়ে দায়িত্বে থাকা সহকারী শিক্ষক ইসমাঈল হোসেন বলেন, আমরা স্কুল টিফিন দিয়েছি, সবাই বাড়িতে গেছে। তবে কখন টিফিন দিয়েছেন তার সদুত্তর দিতে পারেনি। এ বিষয়ে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মজিবর রহমান মুঠোফোনে জানান, আমি বাইরে আছি, আপনারা কি পারেন লিখেন।
এ বিষয়ে জেলা শিক্ষা অফিসার শাহীন আকতার বলেন, বিষয়টি আমি তদন্ত করে দেখবো।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2021
ভাষা পরিবর্তন করুন »