1. md.zihadrana@gmail.com : admin :
সখিপুর ইউনিয়নে স্মার্ট কার্ড বিতরন ব্যাপক অনিয়মের অভিযো - দৈনিক সবুজ বাংলাদেশ

২৩শে ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ । সকাল ১০:১৪ ।। গভঃ রেজিঃ নং- ডিএ-৬৩৪৬ ।।

সংবাদ শিরোনামঃ
অটোয়াস্থ বাংলাদেশ হাইকমিশন কর্তৃক ‘মহান শহিদ দিবস’ ও ‘আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস’ পালন পিরোজপুর জেলার নেছারাবাদ থানার সন্ধ্যা নদীর ভাংগন ঠেকানো যাচ্ছে না ইট ভাটার কারনে দুর্নীতির সংবাদ প্রকাশের পর সহকারী জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার আবু হেনা মোস্তাফার বদলি সড়ক ও জনপথ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী সুমন সিংহের বিরুদ্ধে ব্যাপক দূর্ণীতির অভিযোগ তিতাস গ্যাস আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ে বঙ্গবন্ধুর ছবি নিয়ে মিথ্যাচার ইউনিয়ন আ’লীগের পদের বসেই বিপুল অর্থবৃত্তের মালিক জাতীয় সাংবাদিক সংস্থা’র বুড়িচং উপজেলা কমিটি গঠন রিকশা এমদাদ বাহিনীর তাণ্ডবে অতিষ্ঠ বাড্ডাবাসী, থানায় মামলা আবুল মোল্লার বাড়িতে ভয়াবহ ডাকাতি ! শহর সমাজসেবা কার্যালয়-১,ঢাকা কর্তৃক বাস্তবায়িত কার্যক্রম সমূহ জোরদার করন” শীর্ষক সেমিনার
সখিপুর ইউনিয়নে স্মার্ট কার্ড বিতরন ব্যাপক অনিয়মের অভিযো

সখিপুর ইউনিয়নে স্মার্ট কার্ড বিতরন ব্যাপক অনিয়মের অভিযো

বিশেষ প্রতিনিধি।

সখিপুর ইউনিয়নে ১৬ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ থেকে শুরু হয়েছে ২০০৭ থেকে ২০১৬ সাল পর্যন্ত নাগরিকদের স্মার্ট কার্ড বিতরন হচ্ছে। প্রতিদিন কমপক্ষে ৩০০/৪০০ লোকের আইডি কার্ড সমস্যা যেমন রঙ্গিন ফটো কপি, শুধু ফটোকপি নানা অজুহাতে সাধারণ মানুষের কাছ থেকে ৩৪৫ টাকা টাকা করে নেওয়া হচ্ছে। কেউ ৩৫০ টাকা দিলে তাক ৫ টাকা আর ফিরত দিচ্ছেনা বলছেন খুচরা নেই।কিন্তু সবাইকে দেওয়া হচ্ছে না কোন ম্যানি রিসিট। এখানে তাদের বিজ্ঞপ্তিতে বলা ছিল সোনালী ব্যাংকের যদি চালানে ৩৪৫ টাকা জমা দিবে কারো হাতে নয়। তাদের অজুহাত সোনালী ব্যাংক এখানে না থাকায় ডাচ বাংলা ব্যাংকের মাধ্যমে আমরা জমা দিচ্ছি। প্রতিদিন যে পরিমাণ লোক থেকে লোকদের থেকে টাকা রিসিভ করছেন হে পরিমাণ মানি রিসিট কর্তৃপক্ষ দেখাইতে পারেননি। সবকিছু দেখে মনে হলো এখানে যথেষ্ট ঘাপলা হচ্ছে। এ বিষয়ে বেদেগঞ্জ উপজেলা নির্বাচন অফিসার মঞ্জুর মোরশেদ আলমকে মোবাইলে কল দিলে তিনি কল রিসিভ করেননি। এ বিষয়ে ভুক্তভোগীরা সোশ্যাল মিডিয়ায় যথেষ্ট খুব প্রকাশ করেছেন। এর আগেও প্রতিটি উপজেলা নির্বাচন অফিসের বিষয়ে একাধিকবার অনিয়মের নিউজ হয়েছে এবং অনেককে বদলেও করা হয়েছে। উপজেলা নির্বাচন অফিসগুলো অনিয়ম যেনই নিয়মের পরিণত হচ্ছে।
অনেক গরিব অসহায় মানুষ স্মার্ট কার্ড নিতে এসে বিপাকে পড়ছেন ঘন্টার পর ঘন্টা লাইনে দাঁড়িয়েও নিতে পারছে না তাদের কাঙ্ক্ষিত স্মার্ট কার্ডটি।
এতে প্রমানিত যে এসকল অনিয়ম তাদের জ্ঞাতার্থে হয়ে থাকে। ২০ জনে ১ জনকে ডাচ বাংলা ব্যাংকের একটি ভাউচার ধরিয়ে দিচ্ছে। বহু লোকের অভিযোগ তাই প্রমাণ করে।

সখিপুর স্মার্ট কার্ড বিতরন দীর্ঘ লাইন জনগণের ভোগান্তি লক্ষ করা যায়।

এমন অনিয়ম থেকে নিস্তার পেতে চায় সাধারণ মানুষ।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2021
ভাষা পরিবর্তন করুন »