1. md.zihadrana@gmail.com : admin :
কিশোরগঞ্জ জেলার করিমগঞ্জ উপজেলার যুবক দালালের খপ্পরে পড়ে দেশে ফেরত নিঃস্ব বীর মুক্তিযোদ্ধা পরিবার - দৈনিক সবুজ বাংলাদেশ

২২শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ । বিকাল ৫:৪৪ ।। গভঃ রেজিঃ নং- ডিএ-৬৩৪৬ ।।

সংবাদ শিরোনামঃ
বটিয়াঘাটার মাখঝানুল উলুম নুরানী ও মহিলা মাদ্রাসার সুপারের বিরুদ্ধে অনৈতিক কর্মকান্ডের প্রতিবাদ করায় চাকরিচ্যুত হলো এক শিক্ষিকা  বিএমইটির ১১ স্মার্ট কার্ড জালিয়াতি: বিদেশ যেতে না পেরে দুর্ভোগে কর্মীরা কেরানীগঞ্জ প্রেসক্লাবে সভাপতি আব্দুল গনী সাধারণ সম্পাদক মোস্তফা কামাল প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ৪৪ তম স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষে বঙ্গমাতা সাংস্কৃতিক জোটের আলোচনা সভা ও দোয়া অনুষ্টিত মাদারীপুরে প্রতিবন্ধী ভাতার টাকা দুই সহকারী সমাজসেবা অফিসারের পকেটে যমুনা লাইফের গ্রাহক প্রতারণায় ‘জড়িতরা’ কে কোথায় মেয়র বলে কথা: একাধিক পত্রিকায় পৌরসভার দুর্নীতি ও ভূমিদুস্যতার সংবাদ প্রকাশিত হলেও নিরব প্রশাসন বাংলাদেশে উদ্বোধন হলো টাটা মটরস-এর ‘টাটা যোদ্ধা ঔষধ প্রশাসনের দুর্নীতিবাজ কর্মকর্তাদের প্রত্যাক্ষ মদদে ইউনানী, আয়ুর্বেদিক কোম্পানির প্রাণঘাতী ঔষধে বাজার সয়লাব স্নাতকের মেধা তালিকায় তৃতীয় স্থানে অবন্তীকা
কিশোরগঞ্জ জেলার করিমগঞ্জ উপজেলার যুবক দালালের খপ্পরে পড়ে দেশে ফেরত নিঃস্ব বীর মুক্তিযোদ্ধা পরিবার

কিশোরগঞ্জ জেলার করিমগঞ্জ উপজেলার যুবক দালালের খপ্পরে পড়ে দেশে ফেরত নিঃস্ব বীর মুক্তিযোদ্ধা পরিবার

মোঃ আলমগীর :কিশোরগঞ্জ জেলা প্রতিনিধি:

জীবিকার তাগিদে রোমানিয়া গিয়েছিল করিমগঞ্জ উপজেলার কিরাটন ফকিরপাড়া গ্রামের এক যুবক।
ভুক্তভোগী জানান কাজের সন্ধানে ওয়ার্কিং ভিসায় রোমানিয়া যেতে মৃত বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল মোতালিব চেয়ারম্যানের ছোট ছেলে বাদল মিয়া।
সে উন্নত জীবনের আশায় রোমানিয়া যাওয়ার স্বপ্ন দেখতে শুরু করে।সেই অনুযায়ী মোঃ খোকন মিয়া নামে এক দালালের মাধ্যমে বৈধ পথে রোমানিয়া যাওয়ার জন্য ৭লক্ষ টাকা চুক্তিবদ্ধ হয়।পরে মৃত বীর মুক্তিযোদ্ধার পরিবারের সেই যুবক বলেন অভিযুক্ত দালাল তাড়াইল থানাধীন জাওয়ার ইউনিয়ননের গ্রামের মৃত আনজু খান ছেলে।
ভুক্তভোগী যুবক আরো জানান কাজের সন্ধানে ওয়ার্কিং ভিসা রোমানিয়া যেতে বীর মুক্তিযোদ্ধা ভাতা একাউন্ট থেকে ঋণ উত্তোলন করেন।ধার দেনা করে প্রায় ৭ লক্ষ টাকা দালালের হাতে তুলে দিয়েছিল তিনি। দালানের ওয়ার্কিং ভিসার দুটি কোম্পানির কাগজে তুলে দেয় দিয়ে বলে তুমি এখানে যাও তোমাকে দুটি কোম্পানির কাগজ দিয়ে দিয়েছি।একে বলে ভাইয়া দলিল মতই দালাল ওয়ার্কিং ভিসা দিয়ে চলতিএ বছরের ২৪(মে) মাসে রোমানিয়া পাঠায়। সেখানে পৌঁছার পর টানা দুই ঘন্টা ইমিগ্রেশন জন্য অপেক্ষা করতে থাকি তখন সেখানকার কর্তৃপক্ষ আমাদেরকে বলে কাগজপত্র দেওয়ার জন্য পাসপোর্ট ভিসা কোম্পানির ডকুমেন্টস যাবতীয় তার কাছে দেই। তাৎক্ষণিক দালালদের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী কোম্পানিতে রোমানিয়া পুলিশ তাকে ফোন করে যোগাযোগ করেন।তিনি অস্বীকার করেন আমি কোন বাংলাদেশী শ্রমিক আনি নাই। কিংবা যে কোম্পানির ওয়ার্কিং ভিসার পারমিট দিয়েছে। ঐরাষ্ট্রের কোম্পানির কোন অস্তিত্ব না থাকায় পুলিশ তাৎক্ষণিক গত ২৫(মে) আমাকে সহ ১২ জন আটক করে বিমান ভাড়া ব্যবস্থা করে সকলকে বাংলাদেশে ফেরত পাঠায়। বর্তমানে বীরমুক্তিযুদ্ধা পরিবার পাওনাদারের চাপে চরম দুশ্চিন্তায় দিন কাটাচ্ছে। ভুক্তভোগী বলেন আমি একজন বীর মুক্তিযোদ্ধার সন্তান মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ও প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করি।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2021
ভাষা পরিবর্তন করুন »